আজ নতুন বন্ড ছাড়ছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া সুদের হার ৭.১৫ শতাংশ

আজ নতুন বন্ড ছাড়ছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া সুদের হার ৭.১৫ শতাংশ
আজ নতুন বন্ড ছাড়ছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া সুদের হার ৭.১৫ শতাংশ

 আজ, ১ জুলাই থেকে বাজারে নতুন বন্ড ছাড়ছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া। এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘ফ্লোটিং রেট সেভিংস বন্ডস ২০২০’। সুদের হার ৭.১৫ শতাংশ। বন্ডের মেয়াদ সাত বছর। ন্যূনতম এক হাজার টাকা দিয়ে বন্ড কেনা যাবে। এক হাজার টাকার গুণিতকে বাড়ানো যাবে বন্ডের মূল্য।
বিভিন্ন ক্ষেত্রে যখন সুদের হার কমছে, স্বল্প সঞ্চয় বা ডাকঘরের সুদেও মন ভরছে না গ্রাহকের— সেই অবস্থায় আরবিআইয়ের এই বন্ড কিছুটা সুরাহা দেবে বলেই মনে করা হচ্ছে। জানা গিয়েছে, এখানে ছ’মাস অন্তর সুদ প্রদান করা হবে। সেই হিসেব মতো প্রথমবার সুদ প্রদান করা হবে ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি। ন্যাশনাল সেভিংস সার্টিফিকেটের যে সুদ ঘোষণা হবে, তার উপর নির্ভর করবে বন্ডের সুদের হার। তার থেকে ৩৫ বেসিস পয়েন্ট বা ০.৩৫ শতাংশ বেশি সুদ গ্রাহককে দেওয়া হবে বলেই জানা গিয়েছে। এখন যেহেতু এনএসসি’র সুদের হার ৬.৮ শতাংশ, তাই তার সঙ্গে ০.৩৫ শতাংশ সুদ বাড়িয়ে বন্ডের সুদ নির্ধারিত হয়েছে ৭.১৫ শতাংশ। এরপর প্রতি জানুয়ারি এবং জুলাই মাসে এনএসসি’র যে সুদ ঘোষিত হবে, তার থেকে ০.৩৫ শতাংশ বাড়তি সুদ পাবেন গ্রাহক। আয়কর আইন অনুযায়ী সুদের ক্ষেত্রে টিডিএস কেটে নেওয়া হবে।
বন্ডের মেয়াদ সাত বছরের হলেও, বয়স্ক ব্যক্তিরা চাইলে মেয়াদে কিছুটা রেহাই পেতে পারেন। ৬০ থেকে ৭০ বছর বয়সের ব্যক্তিরা ছ’বছর পর বন্ড ভাঙাতে পারেন। ৮০ বছর পর্যন্ত বয়স হলে বন্ড ভাঙানো যাবে পাঁচ বছর পর। তার উপর বয়স হলে চার বছর পর সেই সুযোগ মিলবে। বন্ড যেমন একজন ব্যক্তি কিনতে পারেন, তেমনই জয়েন্ট হোল্ডার বা যুগ্মভাবে কেনারও সুযোগ আছে। চাইলে দু’জনের বেশি ব্যক্তি বন্ড কিনতে পারেন। এক্ষেত্রে যদি কোনও কোনও একজন ক্রেতার বয়স ৬০ বা তার বেশি হয়, তাহলে বয়স অনুযায়ী সাত বছরের আগেই বন্ড ভাঙানো যাবে। অবিভক্ত হিন্দু পরিবারের নামেও বন্ড কেনা যাবে বলে জানিয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক।
বন্ড নগদ পয়সায় কেনা যাবে। সেক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সীমা ২০ হাজার টাকা। এছাড়া চেক, ড্রাফ্ট বা অন্য কোনও ইলেকট্রনিক মোডে বন্ড কেনা যায়। বন্ড ট্রান্সফার করা যাবে না। কিন্তু গ্রাহক নমিনি করতে পারবেন। আরবিআই জানিয়েছে, গ্রাহক যেমন এই বন্ড অন্য কোনও ব্যক্তিকে বিক্রি করতে পারবেন না, তেমনই বন্ডকে কাজে লাগিয়ে ব্যাঙ্ক ঋণ দেবে না। অর্থাৎ বন্ডকে কো-ল্যাটেরাল হিসেবে কাজে লাগানো যাবে না।
আরবিআই জানিয়েছে, বন্ড কেনা যাবে স্টেট ব্যাঙ্ক, ব্যাঙ্ক অব বরোদা (বিজয়া ব্যাঙ্ক এবং দেনা ব্যাঙ্কও এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত), ব্যাঙ্ক অব মহারাষ্ট্র, ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া, কানাড়া ব্যাঙ্ক (সিন্ডিকেট ব্যাঙ্ক এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত), সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক , ইন্ডিয়ান ব্যাঙ্ক (এলাহাবাদ ব্যাঙ্ক এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত), ইন্ডিয়ান ওভারসিজ ব্যাঙ্ক, পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক (ওরিয়েন্টাল ব্যাঙ্ক এবং ইউবিআই এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত), পাঞ্জাব অ্যান্ড সিন্ধ ব্যাঙ্ক, ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক (অন্ধ্র ব্যাঙ্ক এবং কর্পোরেশন ব্যাঙ্ক এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত),
ইউকো ব্যাঙ্ক, এইচডিএফসি, আইসিআইসিআই, আইডিবিআই এবং অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক থেকে।