দাউদের পেপার মিলে ছাপছে জাল নোট ৫০০ টাকার নোটে পাকিস্তানের কারখানায় মজুত ৬০০ কোটি

দাউদের পেপার মিলে ছাপছে জাল নোট ৫০০ টাকার নোটে পাকিস্তানের কারখানায় মজুত ৬০০ কোটি

করাচি থেকে ১৫০ কিলোমিটার দূরের শিল্পতালুক কোটরি, পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশের অন্তর্গত। ছোট-বড় কলকারখানা জুড়ে কর্মব্যস্ত একটা মহল্লা। করোনা আবহের লকডাউন পর্বে বন্ধ ছিল সমস্ত কর্মব্যস্ততা। তার মধ্যেই এখানকার একটি কাগজ কল ঘিরে চিন্তায় কপালে ভাঁজ পড়েছে ভারতীয় গোয়েন্দাদের। আশপাশের কলকারখানায় কাজকর্ম বন্ধ থাকলেও, ‘মেহেরান পেপার মিলস’ নামে ওই কাগজ কলে দিন-রাত উৎপাদন চলছে। গত জুন মাসের গোড়ায় কারখানার বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে চক্ষু চড়কগাছ গোয়েন্দাদের! মেহেরান কাগজকলের মালিক ‘ইন্ডিয়াস মোস্ট ওয়ান্টেড’ দাউদ ইব্রাহিম কাসকরের ভাই হাজি আনিস ইব্রাহিম। নাম কা ওয়াস্তে আনিস মালিক হলেও কারখানার প্রকৃত নিয়ন্ত্রক দাউদ আর তার রক্ষাকর্তা পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআইয়ের ভারত বিরোধী ‘অপারেশন টোপাজ’ ডেস্কের চার-পাঁচজন আধিকারিক।
এর আগে ভারতীয় কারেন্সি নোট জাল করা এবং সন্ত্রাসবাদী কাজে অর্থ সরবরাহের অভিযোগে ‘ফরেন নারকোটিক্স কিংপিন ডেজিগনেশন অ্যাক্ট’ অনুযায়ী ২০১৫ সালের ১৬ জানুয়ারি ইউএস ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট মেহেরান পেপার মিলের মালিক আনিস ইব্রাহিম এবং কারখানার সঙ্গে যুক্ত দাউদের অপর এক সহযোগী আজিজ মুসা বিলাখিয়াকে কালো তালিকাভুক্ত করে। ওই বছরের ১৫ মে কাগজ কলটি বন্ধ করার জন্য পাকিস্তান সরকারকে বাধ্য করায় আমেরিকা। দীর্ঘ পাঁচ বছর বন্ধ থাকার পর লকডাউন পর্বে অত্যন্ত গোপনে ওই কারখানা ফের চালু হওয়াতেই টনক নড়ে মার্কিন ও ভারতীয় গোয়েন্দাদের। নানা সূত্র থেকে গোয়েন্দারা জেনেছেন, কমপক্ষে ৬০০ কোটি টাকার জাল ভারতীয় নোট ইতিমধ্যেই ছেপে সেখানে মজুত করেছে ডি-কোম্পানি। শুধুই ৫০০ ও ২০০ টাকার ভারতীয় নোট জাল করা হয়েছে। মানচিত্র বিতর্ক সহ সীমান্তের নানা ইস্যুতে সম্প্রতি দিল্লির সঙ্গে কাঠমান্ডুর সম্পর্কে অনেকটাই ‘চিড়’ ধরেছে। আর সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়েই নেপাল হয়ে পশ্চিমবঙ্গ, বিহার আর উত্তরপ্রদেশ সীমান্ত দিয়ে জাল নোট গোটা দেশে ছড়িয়ে দেওয়ার ছক কষেছে দাউদ বাহিনী। এরাজ্য লাগোয়া নেপালের ঝাঁপা, ইলম আর মোরাং এলাকায় দাউদের সিন্ডিকেট যথেষ্ট সক্রিয়। আর তার জেরেই ওই দুই রাজ্যের সঙ্গেই দার্জিলিং ও শিলিগুড়ির নেপাল সীমান্তে সতর্ক করা হয়েছে সশস্ত্র সীমা বলকে।
গোয়েন্দারা বলছেন, করাচিতে পাকিস্তান সিকিউরিটি প্রিন্টিং কর্পোরেশনের প্রেসে যে সমস্ত যন্ত্রপাতি সেখানকার কারেন্সি নোট ছাপাতে ব্যবহার করা হয়, সেই একই সরঞ্জাম রয়েছে মেহেরান পেপার মিলে। সেই যন্ত্রেই ছাপা হচ্ছে জাল নোট। গোয়েন্দা সূত্রে জানা গিয়েছে, দাউদের জাল নোট কারবারের ‘হ্যান্ডলার’ আফতাব বাটকির মাধ্যমে করাচি থেকে কনসাইনমেন্ট আগে দুবাইয়ের স্ট্যাক ইয়ার্ডে মজুত করা হতো। সম্প্রতি সংযুক্ত আরব আমিরশাহি প্রশাসন ডি-কোম্পানির বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ায় দুবাইকে এড়িয়ে চলছে তারা। কিন্তু নেপালই কেন? গোয়েন্দারা বলছেন, সেখানকার প্রাক্তন মন্ত্রী সেলিম মিয়াঁ আনসারির ছেলে ইউনুস আনসারি দাউদ সিন্ডিকেটের মূল মাথা। গত বছরের ২২ মে কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সাড়ে সাত কোটি টাকার ভারতীয় জাল নোট সমেত গ্রেপ্তার করা হয় ইউনুস সহ তিন পাক নাগরিককে। তারপর থেকে কাঠমান্ডুর অদূরে ললিতপুরের নাকখু জেলে বন্দি রয়েছে সে। গোয়েন্দারা বলছেন, জেলে বসেই জাল নোটের কারবার চালাচ্ছে ইউনুস। কাশ্মীরের জঙ্গিদের সমর্থনে প্রকাশ্যে গলা চড়ানো নেপালের এই প্রভাবশালী ব্যক্তি দাউদের অস্ত্র কারবারেররও অন্যতম চাঁই।