দেশে মেয়েদের বিবাহের ন্যূনতম বয়স বাড়তে চলেছে, জানালেন প্রধানমন্ত্রী

দেশে মেয়েদের বিবাহের ন্যূনতম বয়স বাড়তে চলেছে, জানালেন প্রধানমন্ত্রী

ভারতে মেয়েদের আইনসিদ্ধ বিবাহের ন্যূনতম বয়সের পরিবর্তন হতে চলেছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শুক্রবার এই ঘোষণা করেছেন। মনে করা হচ্ছে, মেয়েদের বিবাহের ন্যূনতম বয়স এর ফলে ১৮ বছর থেকে বাড়বে। তবে সেটা ২০ অথবা ২১ কত হবে, ঩সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে সংশ্লিষ্ট কমিটি কেন্দ্রকে রিপোর্ট দেওয়ার পরই।
বর্তমান ‘চাইল্ড ম্যারেজ প্রহিবিশন অ্যাক্ট’ অনুযায়ী মেয়েদের বিবাহের সময় ন্যূনতম বয়স ১৮ বছর। পুরুষদের ক্ষেত্রে বিবাহের ন্যূনতম বয়স ২১। কিন্তু ভারতে কন্যাসন্তানদের অপুষ্টিজনিত রোগ ও মৃত্যুর হার বিপজ্জনক। এই অপুষ্টিজনিত অসুস্থতা ও মৃত্যুর প্রবণতা আরও বেশি কম বয়সে বিবাহের কারণেই। তাই কেন্দ্রীয় সরকার চাইছে, ১৮ বছর থেকে বাড়িয়ে দেওয়া হোক মেয়েদের বিবাহযোগ্য ন্যূনতম বয়স। আইনত এই ব্যবস্থা কার্যকর করা হলে মেয়েদের মন ও শরীর প্রস্তুত হওয়ার আগেই বিয়ে দেওয়ার প্রবণতা কমবে।
গত ১৫ আগস্ট লালকেল্লা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই ঘোষণা করে বলেছেন, এখন দেশে মেয়েদের শিক্ষার হার অনেক বেশি। গ্রামের মেয়েরাও পুরুষদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে টেক্কা দিচ্ছে। কন্যাসন্তানকে আরও বেশি করে শিক্ষার সুযোগ করে দিতে সর্বাগ্রে পুষ্টি প্রদান করতে হবে। সেই লক্ষ্যেই প্রয়োজন বিবাহের বয়স বাড়িয়ে দেওয়া। এই পরিকল্পনা নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে নারী-শিশুকল্যাণ ও স্বাস্থ্য মন্ত্রকের সদস্যদের নিয়ে। শুক্রবার মোদি বলেছেন, আমার কাছে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মহিলা সংগঠন ও মানুষ জানতে চাইছেন যে, এই বিষয়টি নিয়ে কবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সকলেই চাইছেন দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হোক। আমি প্রত্যেককে আশ্বস্ত করছি, কমিটি রিপোর্ট প্রদান করার পর খুব শীঘ্রই এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আইন সংশোধন করতে হবে। আশা করা হচ্ছে, শীতকালীন অধিবেশনেই এই সংশোধনী বিল সম্ভবত নিয়ে আসবে সরকার।  ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার অর্গানাইজেশনের এক অনুষ্ঠানে মোদি।