পুজোর আগেই ব্যাঙ্কে ৩ হাজার ক্লার্ক, প্রবেশনারি পদে নিয়োগ

পুজোর আগেই ব্যাঙ্কে ৩ হাজার ক্লার্ক, প্রবেশনারি পদে নিয়োগ

 

 করোনা আবহে ছ’মাস ধরে কার্যত স্তব্ধ গোটা দেশ। জিডিপি নেমে গিয়েছে মাইনাসে। স্বাস্থ্যক্ষেত্র বাদে নতুন চাকরির সুযোগ তৈরি হয়নি। তবে পরিস্থিতি বদলাচ্ছে। ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পর্যায়ের পরীক্ষার সঙ্গে সঙ্গে কেটে যাচ্ছে অনিশ্চয়তার মেঘ। চাকরি প্রার্থীদের কাছে আশীর্বাদ হয়ে দেখা দিয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে ক্লার্ক এবং প্রবেশনারি অফিসার পদে প্রায় তিন হাজার চাকরির সুযোগ। ক্লার্ক পদে ইতিমধ্যেই অনলাইন আবেদনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। যা চলবে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। মোট শূন্যপদ ১ হাজার ৫৫৭টি। যোগ্যতামান স্নাতক। সাধারণ প্রার্থীদের জন্য পরীক্ষায় বসার বয়সসীমা ২৮ বছর। এসটি-এসসি এবং ওবিসি প্রার্থীদের জন্য যথাক্রমে ৫ এবং ৩ বছরের ছাড় দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ব্যাঙ্ক সূত্রের খবর, প্রবেশনারি অফিসার পদে আবেদন করার শেষ দিন ছিল গত ২৬ আগস্ট। ১ হাজার ৪১৭টি এই শূন্যপদের জন্য ২৪ লক্ষেরও বেশি আবেদন জমা পড়েছে। সর্বোচ্চ ৩০ বছর বয়সিরাই আবেদন করতে পেরেছেন। এক্ষেত্রেও যোগ্যতামান ছিল স্নাতক ডিগ্রি এবং কম্পিউটারে বিশেষ দক্ষতা। আগামী ৩ অক্টোবর থেকে শুরু হবে পরীক্ষা প্রক্রিয়া। সব মিলিয়ে এই সঙ্কটময় মুহূর্তেও দেখা যাচ্ছে নতুন আলোর দিশা।
জানা গিয়েছে, আবেদনপত্র জমা থেকে পরীক্ষা—সবটাই হবে অনলাইনে। ক্লার্ক পরীক্ষার মূলত দু’টি পর্যায় থাকবে। প্রথমটি প্রিলিমিনারি। সেখানে সফল হলে ফাইনাল পরীক্ষায় বসার সুযোগ মিলবে। তারপর ইন্টারভিউ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তৈরি হবে চূড়ান্ত মেধা তালিকা। আগামী ৫, ১২ এবং ১৩ ডিসেম্বর অনলাইনে প্রিলিমিনারি পরীক্ষার দিন ধার্য হয়েছে। ৩১ ডিসেম্বর প্রকাশিত হবে ফলাফল। আগামী বছরের ২৪ জানুয়ারি মেইন পরীক্ষার বিষয়টিও চূড়ান্ত। ফল জানা যাবে ১ এপ্রিল।
অন্যদিকে, আগামী ৩ অক্টোবর থেকে ব্যাঙ্কের প্রবেশনারি অফিসার পদে অনলাইন পরীক্ষা শুরু হবে। প্রিলিমিনারি পরীক্ষা চলবে ১০ ও ১১ অক্টোবরও। মেইন পরীক্ষার দিন ধার্য করা হয়েছে ২৮ নভেম্বর। চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে। আগামী ২০২১ সালের জানুয়ারির ও ফেব্রুয়ারি মাস জুড়ে চলবে ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া। সফল প্রার্থীদের চাকরিতে বহাল করা হবে এপ্রিল মাসে।
জানা গিয়েছে, সফল প্রার্থীদের ১১টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের জন্য নির্বাচিত করা হবে। সেগুলি হল—পিএনবি, ইউবিআই, ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া, ইন্ডিয়ান ব্যাঙ্ক, সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক, ইন্ডিয়ান ওভারসিজ ব্যাঙ্ক, ব্যাঙ্ক অব বরোদা, কানাড়া ব্যাঙ্ক, পাঞ্জাব অ্যান্ড সিন্ধ ব্যাঙ্ক, ব্যাঙ্ক অব মহারাষ্ট্র। সূত্রের দাবি, ক্লার্ক পদের জন্য প্রায় ৩০ লক্ষ আবেদন জমা পড়তে পারে। করোনা আতঙ্ক কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে, নয়া আর্থিক বছরের শুরুতেই এই শূন্যপদগুলি পূরণ করার লক্ষ্যে এগচ্ছে নিয়ামক সংস্থা।