বিরাটদের বিজয়রথ থামাতে মরিয়া পাঞ্জাব

বিরাটদের বিজয়রথ থামাতে মরিয়া পাঞ্জাব

একের পর এক ম্যাচ জিতে প্লে-অফের পথে ক্রমশ এগিয়ে চলেছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। সাতটি খেলে বিরাট কোহলির দলের সংগ্রহ ১০ পয়েন্ট। বৃহস্পতিবার আরসিবি’র প্রতিপক্ষ কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। লোকেশ রাহুলরা এই মুহূর্তে পয়েন্ট তালিকায় একেবারে নীচে রয়েছেন। সাতটি ম্যাচের মধ্যে পাঞ্জাব জিতেছে মাত্র একটিতে। ক্রিকেটারদের মনোবল একেবারে তলানিতে। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে পয়েন্ট টেবিলে নিজেদের আবস্থান আরও মজবুত করতে চাইছে বেঙ্গালুরু। প্রথম সাক্ষাতে বিরাটদের টেক্কা দিয়েছিলেন রাহুলরা। ফিরতি লড়াইয়েও সেই প্রেরণা কাজে লাগিয়ে আরসিবি’র বিজয়রথ থামানোর লক্ষ্যে নামবে পাঞ্জাব।
বরাবরই তারকাখচিত দল গড়ে আরসিবি। কিন্তু আজ পর্যন্ত তারা খেতাবের নাগাল পায়নি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ত্রয়োদশ আইপিএলে আরসিবি’র ক্রিকেটাররা যেমন ছন্দে রয়েছেন, তাতে এবার কোহলির হাতে ট্রফি উঠলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। বেঙ্গালুরুর টপ অর্ডার ধারাবাহিক ভাবে রান করছে। দেবদূত পাদিক্কাল ও অ্যারন ফিনচ ইনিংসের শুরুটা ভালো করায় পরের দিকে বিরাট কোহলি, এবি ডি’ভিলিয়ার্সদের চালিয়ে খেলতে সুবিধা হচ্ছে। মিডল অর্ডারে শিবম দুবে, ওয়াশিংটন সুন্দরও কার্যকরী ভূমিকা পালন করছেন।
আরসিবি’র বোলিংও বিগত কয়েক বছরের তুলনায় এবার বেশ ছন্দে রয়েছে। স্পিনার যুজবেন্দ্র চাহাল হোক কিংবা পেসার নবদীপ সাইনি প্রত্যাশা পূরণে সফল। ইসুরু উদানা ও ক্রিস মরিসের মতো বিদেশি পেসাররাও এবার দারুণ সার্ভিস দিচ্ছেন।
অন্যদিকে, কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের ব্যাটিং বড় বেশি লোকেশ রাহুল ও মায়াঙ্ক আগরওয়াল নির্ভর। দু’জনেই রানের মধ্যে রয়েছেন। ওপেন করতে নেমে নিয়মিত বড় ইনিংস খেলছেন তাঁরা। কিন্তু বাকিরা তেমন সহযোগিতা করতে না পারায় সাফল্য পাচ্ছে না দল। গত ম্যাচে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিরুদ্ধে জয়ের উজ্জ্বল সম্ভাবনা জাগিয়েও ২ রানে হেরে গিয়েছিল পাঞ্জাব। বৃহস্পতিবার দলে বেশ কিছু পরিবর্তন আনতে চান কোচ অনিল কুম্বলে। বর্ষীয়ান ক্যারিবিয়ান তারকা ক্রিস গেইল অবশেষে মাঠে নামতে পারেন। তাতে পাঞ্জাবের ভাগ্যের চাকা ঘোরে কি না সেটাই দেখার।
কোহলি বাহিনীর বিজয়রথ থামাতে হলে পাঞ্জাবের বোলারদের শুরুতেই কয়েকটা উইকেট তুলে নিতে হবে। সেক্ষেত্রে মহম্মদ সামি, কটরেলদের