ভাড়া বৃদ্ধির দাবিতে অনড় মালিকরা, কমে গেল বেসরকারি বাস, ভোগান্তি কড়া ব্যবস্থা নেবে রাজ্য

ভাড়া বৃদ্ধির দাবিতে অনড় মালিকরা, কমে গেল বেসরকারি বাস, ভোগান্তি কড়া ব্যবস্থা নেবে রাজ্য
ভাড়া বৃদ্ধির দাবিতে অনড় মালিকরা, কমে গেল বেসরকারি বাস, ভোগান্তি কড়া ব্যবস্থা নেবে রাজ্য

 কলকাতা: আশঙ্কা সত্যি করে সোমবার রাস্তায় নামল না বহু বেসরকারি বাস। সপ্তাহের প্রথম দিনেই ফিরে এল দুর্ভোগের ছবি। অফিস টাইমে বাস পেতে নাকাল হলেন নিত্যযাত্রীরা। বিকেলের পর দ্বিগুণ হল দুর্ভোগের মাত্রা। পরিস্থিতি মোকাবিলায় অতিরিক্ত সরকারি বাস পথে নামলেও খুব একটা সুরাহা হয়নি। হাওড়া থেকে শিয়ালদহ, বারাকপুর থেকে বেহালা, বারাসত থেকে বারুইপুর—সর্বত্রই ভোগান্তির ছবিটা এক। বাস নিয়ে এদিন সকালে ব্যাপক অশান্তি হয় বারাসতের তিতুমীর টার্মিনাসে। আইএনটিটিইউসি সমর্থকরা বাস বের করতে গেলে বাধা দেন মালিকরা। পুলিস ও পরিবহণ দপ্তরের আধিকারিকরা ঘটনাস্থলে এলেও বাস বের করা যায়নি।
রাত পর্যন্ত এই বাস-যন্ত্রণা থেকে মুক্তির ইঙ্গিত মেলেনি। যদিও এই ইস্যুতে কঠোর মনোভাব নিয়েছে নবান্ন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও ঘনিষ্ঠ মহলে জানিয়েছেন, কোনওমতেই চাপের কাছে নতি স্বীকার করবে না সরকার। প্রয়োজনে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাসের লাইসেন্স বাতিলের কথাও ভাবা হতে পারে।
গতকাল জয়েন্ট কাউন্সিল অব বাস সিন্ডিকেট জানিয়ে দিয়েছিল, বাস তুলে নেবে তারা। যার জেরেই এদিনের ভোগান্তি। অবিলম্বে ভাড়া না বাড়ালে আরও বাস তুলে নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে মালিক সংগঠনগুলি। জেলা থেকেও লাগাতার ধর্মঘটের হুমকি এসেছে। এই দড়ি টানাটানির মধ্যে চলতি সপ্তাহে পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে বাস মালিকদের বৈঠক হতে পারে বলে জানা গিয়েছে।
জয়েন্ট কাউন্সিল অব বাস সিন্ডিকেটের সাধারণ সম্পাদক তপন বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, কলকাতায় বাস চালাতে দিনে খরচ হয় প্রায় ৬ হাজার টাকা। সেখানে টিকিট বিক্রি করে বড়জোর সাড়ে ৩ হাজার টাকা আসছে। চালক ও কন্ডাক্টরকে কমিশন দেওয়ার পর ডিজেল কেনার টাকাও থাকছে না। ওয়েস্ট বেঙ্গল বাস-মিনিবাস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন, অল বেঙ্গল বাস-মিনিবাস সমন্বয় সমিতি ও বেঙ্গল বাস সিন্ডিকেটের কর্মকর্তারা মোটামুটি একই হিসেব দিয়েছেন।
জয়েন্ট কাউন্সিলের হিসেবে এতদিন তাদের হাজার দেড়েক বাস রাস্তায় চলছিল। এদিন কয়েকটি রুটে অল্প কিছু বাস চলেছে, সেগুলিরও বেশিরভাগ দুপুরের পর বসে যায়। অন্য একটি সংগঠন জানিয়েছে, এতদিন ১৮০০ মতো বাস চলছিল, এদিন প্রায় ৫০০টি চলেছে। বেঙ্গল বাস সিন্ডিকেট জানিয়েছে, কলকাতায় তাদের ৭৫০ বাসের জায়গায় এদিন প্রায় ২৫০টি পথে নামে।
গোটা রাজ্যের বেসরকারি বাসকে ভর্তুকির পাশাপাশি ভাড়া বাড়ানোর দাবি জানিয়েছে বর্ধমান জেলা বাস অ্যাসোসিয়েশন। তবে এখনই বাস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে না তারা। আগামী বুধ-বৃহস্পতিবারের মধ্যে চরম সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানিয়েছে বহরমপুর ফেডারেশন অব বাস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন। জয়েন্ট কাউন্সিলের সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়ে নতুন করে বাস নামাচ্ছে না পশ্চিম মেদিনীপুর এবং নদীয়া জেলা বাস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনও। উত্তরবঙ্গে শিলিগুড়ি ইন্টার ডিস্ট্রিক্ট মিনিবাস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক প্রণব মানি বলেন, এখন শিলিগুড়ি থেকে বিভিন্ন রুটে যে ১০-১২টি বাস চলছে, তা চলবে। ভাড়া না বাড়ালে নতুন বাস নামবে না।