রাজ্যপালের সঙ্গে বৈঠক, কালই অনাড়ম্বর শপথ অনুষ্ঠান মমতার

রাজ্যপালের সঙ্গে বৈঠক, কালই অনাড়ম্বর শপথ অনুষ্ঠান মমতার

কাল, বুধবার তৃতীয়বারের জন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সকাল পৌনে ১১টায় রাজভবনে আয়োজিত অনাড়ম্বর ওই অনুষ্ঠানে একাই শপথ নেবেন মমতা। ’২১-এর মহাসংগ্রামে বিরোধী শিবিরে ধস নামিয়ে জয় ছিনিয়ে আনার ‘কারিগর’ মমতাকে সোমবার তৃণমূলের নবনির্বাচিত বিধায়করা পরিষদীয় নেতা নির্বাচন করেছেন। তাঁর প্রতি সমর্থন জানিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকারকে লেখা বিধায়কদের চিঠি নিয়ে এদিনই রাজভবনে যান তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি। পরে সন্ধ্যায় রাজভবনে গিয়ে মমতা চলতি সরকারের মুখ্যমন্ত্রী পদে ইস্তফাপত্র রাজ্যপালকে জমা দিয়ে আসেন। নতুন সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ না নেওয়া পর্যন্ত রাজ্যপাল তাঁকে তদারকি সরকার চালিয়ে যাওয়ার অনুরোধ জানান। এদিন তৃণমূল পরিষদীয় দলের বৈঠকে ঠিক হয়েছে, নির্বাচিত বিধায়করা আগামী ৬ ও ৭ তারিখ কোভিড প্রোটোকল মেনে পর্যায়ক্রমে শপথ নেবেন। দলের তরফে বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়কে পরবর্তী বিধানসভার স্পিকার হিসেবে মনোনীত করা হয়েছে। স্পিকারকে শপথবাক্য পাঠ করাবেন প্রোটেম স্পিকার হিসেবে নির্বাচিত বর্ষীয়ান বিধায়ক সুব্রত মুখোপাধ্যায়। পরে বিমানবাবু বাকি বিধায়কদের শপথবাক্য পাঠ করাবেন। 
বিধানসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, নৌশের আলি কক্ষে বিধায়কদের শপথগ্রহণ হয়। কিন্তু এবার কোভিড পর্বে বিধানসভার মূল সদনের ভিতরেই ছোট ছোট গ্রুপ করে বিধায়কদের শপথ পর্ব চলবে। কে কোন সময়ে শপথ নেবেন, তা নির্দিষ্ট করে সংশ্লিষ্ট জেলার জেলাশাসকরা বিধায়কদের অবহিত করবেন। বিধানসভার সচিবের তরফে এদিন জেলাশাসকদের সেই নির্দেশ পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কোভিড পরিস্থিতির কথা চিন্তা করে নতুন বিধায়কদের ‘র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট’ করানো যায় কি না, তা নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করেছে বিধানসভা কর্তৃপক্ষ। নতুন সরকার গঠন এবং বিধায়কদের শপথগ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার এই আবর্তের মধ্যেই এদিনই পশ্চিমবঙ্গ সহ পাঁচ ভোট-রাজ্য থেকে ‘মডেল কোড অব কন্ডাক্ট’ বা আদর্শ আচরণবিধি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। 
এদিকে, এদিন তৃণমূল ভবনে কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলির বিধায়কদের বৈঠকে ডাকা হয়েছিল। কোভিড সতর্কতার জেরে দূরের জেলার বিধায়কদের বৈঠকে ডাকা হয়নি। বিধায়কদের বৈঠকে তৃণমূল সুপ্রিমোর নিদান—‘অহঙ্কার চলবে না। মানুষ জিতিয়েছে, আগামী পাঁচ বছর সেই মানুষের পাশে থেকে তাঁদের কাজ করতে হবে। স্বচ্ছতার সঙ্গে করতে হবে মা-মাটি-মানুষের সেবা। কোভিড পর্বে চলবে না কোনও বিজয় উৎসব-মিছিল। এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে হবে। কোনও গোলমাল বরদাস্ত করা হবে না।’ মমতার সতর্কবার্তা—‘এমএলএ হয়ে গিয়েছি তাই বাড়িতে বসে থাকব, এমনটা চলবে না। নিরন্তর মানুষের কাজ করতে হবে। আগামী ৯ মে রবীন্দ্র জয়ন্তী। ওই দিনটি যথাযথ মর্যাদার সঙ্গে পালন করতে হবে।’ সূত্রের খবর, সম্ভবত রবীন্দ্র জয়ন্তীর দিনই টিম মমতার নতুন মন্ত্রীরা শপথ নেবেন।  
অপরদিকে, রাজ্যের নবনির্বাচিত বিধায়কদের নামের তালিকা আনুষ্ঠানিকভাবে নথিভুক্ত করার প্রক্রিয়া নির্বাচন কমিশনের তরফে শুরু করা হয়েছে। জেলাওয়াড়ি বিধায়কদের নামের তালিকা রিটার্নিং অফিসাররা রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক আরিজ আফতাবের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন। তালিকাটি বই আকারে ছাপানোর কাজ এদিন রাতে হয়েছে। বিধায়কদের নাম সম্বলিত ওই বইটি মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের হাতে দেবেন। বইয়ের অপর দু’টি কপি পাঠানো হবে নবান্ন এবং বিধানসভায়।